» বরিশালে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ নিয়ে অনিশ্চয়তা!

Published: ০৩. এপ্রি. ২০১৮ | মঙ্গলবার

বরিশালে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ নিয়ে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে। কারণ ৭ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় সমাবেশের অনুমতি এখনও মেলেনি। নগরীর ফজলুল হক অ্যাভেনিউয়ে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে ১৪ মার্চ মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ (বিএমপি) কমিশনার বরাবরে আবেদন করা হয়। কিন্তু ১৪ দিনেও পুলিশ মতামত দেয়নি। এদিকে পুলিশের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, যে স্থানে বিএনপি সমাবেশ করার অনুমতি চেয়েছে, সেখানে অনুমতি দেয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। অন্য কোথাও চাইলে তা বিবেচনা করা হবে।

বরিশাল মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও বিসিসি কাউন্সিলর জিয়াউদ্দিন সিকদার জানান, কারান্তরিন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে দেশের বিভাগীয় শহরগুলোয় সমাবেশ করছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে নগরীর ফজলুল হক অ্যাভেনিউয়ে ৭ এপ্রিল সমাবেশ করার অনুমতি চাওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ওই আবেদনের বিষয়ে বিএমপি কিছুই জানায়নি।

এ সম্পর্কে মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার এসএম রুহুল আমিন বলেন, নগরীর ব্যস্ততম সড়ক ফজলুল হক অ্যাভেনিউয়ে বিএনপিকে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়া হলে তা নাগরিক জীবনে দুর্ভোগের কারণ হবে। তাই সেখানে সমাবেশ করার অনুমতি দেয়া হবে না। বিকল্প আবেদন পাওয়া গেলে বিবেচনা করে দেখা হবে বলেও তিনি জানান।

এ সম্পর্কে বরিশাল জেলা (দক্ষিণ) বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল কালাম শাহিন বলেন, সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের। ঝালকাঠি জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি মিঞা আহম্মেদ কিবরিয়া এবং পিরোজপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আলমগীর হোসেন বলেন, সমাবেশ সফলে আমরা জেলা-উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন-ওয়ার্ড পর্যায়ে প্রচার চালাচ্ছি। দেশনেত্রীর মুক্তির দাবিতে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষেরও স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। কেন পুলিশের উত্তর মিলছে না, তা-ও বলতে পারছেন না বিএনপি নেতারা। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, একই স্থানে কিছুদিন আগে সমাবেশ করেছেন সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তার জনসভা করার ক্ষেত্রে জনদুর্ভোগ না হলে বিএনপির জনসভায় হবে কেন? না কি আমাদের সমাবেশ করতেই দিতে চাইছে না সরকার? তবু আমরা হাল ছাড়ব না। প্রয়োজনে বিকল্প স্থান উল্লেখ করে আবার আবেদন করা হবে। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে জেলা ও মহানগর বিএনপির একাধিক নেতাকর্মী যুগান্তরকে বলেন, ব্যস্ততম সড়ক আটকে সমাবেশ করায় ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ। এমন পরিস্থিতিতে ব্যস্ত সড়কই কেন বেছে নেয়া হল? এক্ষেত্রে শুরুতেই তো কোনো মাঠ কিংবা জটিলতার বাইরে থাকা কোনো স্থানকে নির্বাচন করা যেত। এটা না করে এই জটিলতার সৃষ্টি করা হল, তা পূর্বপরিকল্পিত কি না, সেটাও খুঁজে দেখতে হবে।

বরিশাল মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার বলেন, বিভাগীয় সমাবেশের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। মাত্র এক দিনের নোটিশেও সমাবেশ আসতে প্রস্তুত সবাই। অতএব এসব যারা বলছেন, তারা না বুঝেই বলছেন। নির্ধারিত তারিখ এবং সময়েই বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে, ইনশাল্লাহ।

Share Button

খোঁজাখুঁজি

জুন ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০